বিজ্ঞপ্তি:
Welcome To Our Website...
সংবাদ শিরোনাম :
বাসার ছাদে ডিসি পত্নী দিলরুবা আলমের ছাদ কৃর্ষি, ড্রাগন ফল চাষে ব্যাপক সফলতা সাবেক স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুনের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেন-এমপি শাওন লালমোহনে এমপি শাওন’র পিতার ১ম মৃত্যু বার্ষিকীতে বিভিন্ন মসজিদে মিলাদ ও দোয়া মুনাজাত পটুয়াখালী জেলা ছাত্রলীগ সভাপতির বিরুদ্ধে মিথ্যা অপপ্রচারের প্রতিবাদে মানববন্ধন বরিশাল বিভাগে নতুন করে ১১৪ জনের করোনা শনাক্ত, মোট মৃত্যু ৮১ বাকেরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও স্বাস্থ্য কর্মকর্তা করোনায় আক্রান্ত বরিশালে ভরা মৌসুমেও নেই ইলিশ দেশে একদিনে ৩৭ জনের প্রাণহানি, নতুন শনাক্ত ২৯৪৯ সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুনের মৃত্যুতে বরিশাল মেট্রোপলিটন প্রেসক্লাবের শোক সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুনের মৃত্যুতে দৈনিক শাহনামার শোক
করোনায় মারা গেলেন বাংলাদেশ ব্যাংকের উপদেষ্টা কাজেমী

করোনায় মারা গেলেন বাংলাদেশ ব্যাংকের উপদেষ্টা কাজেমী

বাংলাদেশ ব্যাংকের চেঞ্জ ম্যানেজমেন্ট উপদেষ্টা ও সাবেক ডেপুটি গভর্নর মো. আল্লাহ মালিক কাজেমী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন (ইন্না লিল্লাহি…রাজিউন)। শুক্রবার বিকেলে রাজধানীর এভার কেয়ার হাসপাতালে (সাবেক অ্যাপোলো হাসপাতাল) চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। তার বয়স হয়েছিল ৭২ বছর।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সহকারী মুখপাত্র ও কমিউনিকেশন্স অ্যান্ড পাবলিকেশন্স বিভাগের মহাব্যবস্থাপক জী. এম. আবুল কালাম আজাদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, আল্লাহ মালিক কাজেমী হার্টের সমস্যা নিয়ে এভার কেয়ার হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। পরে করোনা পরীক্ষায় তার পজিটিভ আসে। চিকিৎসাধীন অবস্থায় শুক্রবার বিকেল ৬টা ৫ মিনিটে তার মৃত্যু হয়।

তিনি স্ত্রী, ২ মেয়ে ও এক ছেলেসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

পরিবার সূত্রে জানা গেছে, আল্লাহ মালিক কাজেমীর ছেলে ও স্ত্রী দেশে থাকেন। আর চাকরি সূত্রে বড় মেয়ে থাকেন লন্ডনে। ছোট মেয়ে উচ্চতর ডিগ্রি নিতে বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রে রয়েছেন।

আল্লাহ‌ মালিক কাজেমীকে শনিবার সকালে রায়েরবাজার বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে সরকারি নিয়মে দাফন করা হবে বলে জানা গেছে। পরিবারের পক্ষ থেকে মারকাজের মাধ্যমে দাফনের প্রস্তাব করা হলেও শেষ পর্যন্ত তারা এ ব্যাপারে নিশ্চিত হতে পারেননি।

বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে জানা গেছে, আল্লাহ মালিক মাজেমী ১৯৭৬ সালে সহকারী পরিচালক হিসেবে বাংলাদেশ ব্যাংকে যোগ দেন। ডেপুটি গভর্নর পদ থেকে ২০০৬ সালে অবসরে যান তিনি। পরে একই পদে আরও এক বছর চুক্তিভিত্তিক কাজ করেন তিনি। এরপর ২০০৮ সাল থেকে তিনি বাংলাদেশ ব্যাংকের উপদেষ্টা হিসেবে কাজ করেন। তার আপত্তি সত্ত্বেও চলতি বছরের শুরুর দিকে চুক্তির মেয়াদ একবছর বাড়ানো হয়েছিল। বিদেশি সংস্থা ও বিভিন্ন বাণিজ্যিক ব্যাংকে বড় অংকের বেতনের চাকরির প্রস্তাব পেয়েও বার বার তা প্রত্যাখ্যান করেন তিনি। মুদ্রানীতি প্রণয়ন, বৈদেশিক মুদ্রা ব্যবস্থাপনাসহ কেন্দ্রীয় ব্যাংকিংয়ের বিভিন্ন বিষয়ে তার জ্ঞান ছিল অপরিসিম। তিনি ছিলেন ব্যাংক খাতের শিক্ষক তুল্য। তার মৃত্যুতে কেন্দ্রীয় ব্যাংকসহ পুরো ব্যাংক খাতে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কারিগরি সহায়তা: AMS IT BD