বিজ্ঞপ্তি:
Welcome To Our Website...
সংবাদ শিরোনাম :
সমুদ্রবন্দরে তিন নম্বর স্থানীয় সতর্কতা সংকেত বিএনপি নেতাদের বক্তব্যে মনে হয় বেগম জিয়া কারাগারে থাকলেই ভালো হতো : তথ্যমন্ত্রী পেঁয়াজের ৫ শতাংশ আমদানি শুল্ক প্রত্যাহার বিএনপির আন্দোলনের তর্জন গর্জনই শুধু শোনা যায়, বর্ষণ দেখা যায় না : ওবায়দুল কাদের শীতে করোনা পরিস্থিতি আরও খারাপ হতে পারে, তাই প্রস্তুতি নিন : প্রধানমন্ত্রী পুলিশকে মানুষের আস্থা ও বিশ্বাসের প্রতীক হতে হবে-ডিসি খাইরুল আলম বিএমপি’র নবনির্মিত পুলিশ লাইন্সে বৃক্ষ রোপণ বরিশাল সিটি কর্পোরেশনে একাধিক চাকরির সুযোগ আমতলীতে ৩৬ হাজার শিশুকে খাওয়ানো হবে ভিটামিন ‘এ’ প্লাস করোনায় প্রাণ গেল আরও ২৬ জনের, শনাক্ত ১৫৪৪
সিনহা হত্যা মামলায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন লিয়াকত

সিনহা হত্যা মামলায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন লিয়াকত

অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মো. রাশেদ খান হত্যা মামলায় কক্সবাজার আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন বাহারছড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের সাবেক ইনচার্জ বহিষ্কৃত পরিদর্শক লিয়াকত আলী।

রোববার (৩০ আগস্ট) দুপুর ১২টার দিকে সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তামান্না ফারাহর আদালতে তাকে তোলা হয় । বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে জবানবন্দি গ্রহণ শেষ হয়। প্রায় সাড়ে ৪ ঘণ্টা জবানবন্দি গ্রহণ শেষে লিয়াকত আলীকে জেলা কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়।

মামলার তদন্তকারী সংস্থা র‌্যাবের জ্যেষ্ঠ সহকারী পুলিশ সুপার মোহাম্মদ খায়রুল ইসলাম সাংবাদিকদের এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তৃতীয় দফায় তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুরের একদিন পরই লিয়াকত আলীকে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিতে আদালতে তুলে র‌্যাব।

গত শুক্রবার তৃতীয় দফায় বরখাস্ত ওসি প্রদীপ কুমার দাশ, এসআই লিয়াকত আলী, এএসআই নন্দদুলাল রক্ষিতের তৃতীয়বারের মতো তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

তৃতীয় দফায় তিনের রিমান্ড মঞ্জুরের একদিন পরই আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেওয়ার জন্য বরখাস্ত এসআই লিয়াকত আলীকে কঠোর নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে আদালতে আনা হয়।

এর আগে ২৬ আগস্ট এপিবিএন সদস্য মো. আবদুল্লাহর স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী নেওয়া হয়। জবানবন্দিতে তিনি জানান, ঘটনার দিন মনে হয়েছে ইন্সপেক্টর লিয়াকত শিকারের জন্য দাঁড়িয়ে ছিলেন।

উল্লেখ্য, গত ৩১ জুলাই রাতে টেকনাফের শামলাপুর তল্লাশি চৌকিতে পুলিশের গুলিতে নিহত হন সাবেক সেনা কর্মকর্তা সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান। তিনি মারিশবুনিয়ার একটি পাহাড়ে ভিডিওচিত্র ধারণ করে মেরিন ড্রাইভ দিয়ে কক্সবাজারের হিমছড়ির নীলিমা রিসোর্টে ফিরছিলেন। এ সময় তার সঙ্গে থাকা ক্যামেরাম্যান সাহেদুল ইসলাম সিফাতকে আটক করে পুলিশ। পরে নীলিমা রিসোর্ট থেকে শিপ্রা দেবনাথকে আটক করা হয়। দুজনই এখন জামিনে মুক্ত। খুনের ঘটনায় গত ৫ আগস্ট কক্সবাজার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হত্যা মামলা করেন সিনহা মো. রাশেদ খানের বড় বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌস। এতে ৯ জনকে আসামি করা হয়। মামলায় এ পর্যন্ত ১৩ জন আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এর মধ্যে ৭ জন পুলিশ সদস্য ও ৩ জন এপিবিএন সদস্য। বাকি ৩ জন পুলিশের মামলার সাক্ষী।

Please Share This Post in Your Social Media




কারিগরি সহায়তা: AMS IT BD