বিজ্ঞপ্তি:
Welcome To Our Website...
বরিশালে কেমিস্ট ল্যাবরেটরীজের তিন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা

বরিশালে কেমিস্ট ল্যাবরেটরীজের তিন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা

বরিশালের ওষুধ তৈরি প্রতিষ্ঠান কেমিস্ট ল্যাবরেটরীজ লিমিটেডের তিন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে আদালতে মামলা দায়ের করা হয়েছে। বরিশাল নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মামলাটি আমলে নিয়ে আগামী ১১ অক্টোবর বাদির আটকে রাখা মালামালসহ বিবাদীদের আদালতে স্বশরীরে হাজিরের জন্য নির্দেশ দিয়েছেন।

গত ১৩ সেপ্টেম্বর কেমিস্টের পার্সেস অফিসার মো. সোহেল আহমেদ কেমিস্ট ল্যাবরেটরীজের পরিচালক (অপারেশন) মাহাবুবুর রহমান তুহিন, পরিচালক (মার্কেটিং) মশিউর রহমান তুষার এবং কেমিস্ট ল্যাবরেটরীজের নির্বাহী কর্মকর্তা (আইন) মো. আবুল হোসেনের বিরুদ্ধে জোরপূর্বক চাকরিচ্যুত এবং লাখ লাখ টাকার মালামাল আটকে রাখার অভিযোগে মামলাটি করেছেন।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, ‘বাদী সোহেল আহমেদ কলেজ রো এলাকায় অবস্থিত কেমিস্ট ল্যাবরেটরীজ লিমিটিডে পার্সেস অফিসার পদে ২০০৮ সাল চাকরীতে যোগদান করেন। চাকরির সুবাদে তিনি আসামী মাহাবুবুর রহমান ও মশিউর রহমানের বাসার তৃতীয় তলায় বসবাস করতেন। উক্ত প্রতিষ্ঠানে চাকুরী করাকালীন বাদি সোহেল আহমেদ তার বেতন বৃদ্ধির জন্য মালিক পক্ষকে অনুরোধ করেন। কিন্তু মালিক পক্ষ এতে ক্ষুব্ধ হয়ে কোন ধরণের নোটিশ প্রদান ছাড়া বাদিকে চলতি বছরের ১০ জুন চাকরীচ্যুত করেন। শুধু তাই নয় বাদিকে চাকরীচ্যুত করার সময় নিয়মানুযায়ী বেতন-ভাতা বুঝিয়ে দেওয়ার কথা থাকলেও তারা তা করেননি। কোন ধরণের নোটিশ এবং দেনা-পাওনা না বুঝিয়ে দিয়ে উদ্দেশ্য প্রনোদিতভাবে বাদি সোহেল আহমেদকে চাকরীচ্যুত করা হয়। চাকরীচ্যুত করার পাশাপাশি বাদির অফিসে থাকা ড্রয়ারে এনসিসি ব্যাংকের চেক বইয়ের তিনটি পাতা (নং-এস ৬৩৫২২১৬৭, এস ৬৩৫২১৬৯, এস ৬৩৫২১৭০) বিবাদীরা নিয়ে যায়।

এ ঘটনায় সোহেল আহমেদ চলতি বছরের ২৫ আগস্ট কোতয়ালী মডেল থানায় সাধারণ ডায়েরী করেন (যার নং-১১৪৬)। পরবর্তীতে বাদী জানতে পারেন উক্ত চেকের পাতায় ভুয়া স্বাক্ষর করে বিবাদী মাহাবুবুর রহমান ও মশিউর রহমানের সহযোগিতায় ৩ নম্বর আসামী আবুল হোসেন বাদি সোহেলের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন।

বাদি সাহেল আহমেদ মামলায় আরও উল্লেখ করেন, ‘বিবাদীরা তার ব্যবহৃত একটি এফজেট মোটরসাইকেল (বরিশাল মেট্রো-ল-১১-১৭৯৬), একটি স্যামসাং ওয়াল টিভি, একটি এসি, একটি খাট, একসেট কাঠের সোফা, ফোম, একটি সোকেজ, লেপ-তোষক এবং আরও অনেক আসবাবপত্র জোর করে আটকে রাখেন। বাদি পরবর্তীতে তার মালামাল একাধিকবার নিয়ে আসার জন্য গেলে বিবাদীরা মামলামাল না দিয়ে আত্মসাৎ করার পায়তারা করায় বাদি বাধ্য হয়ে আদালতের শরনাপন্ন হন। গত ১৩ সেপ্টেম্বর আদালতে মামলা দায়ের করলে বিচারক গত ২০ সেপ্টেম্বর ওই আদেশ দেন।

বাদি অভিযোগ করে বলেন, ‘মালামাল নিয়ে আদালতের নির্দেশনা জারির খবরে আসামীরা উক্ত মালামাল গোপনে ঘর থেকে সরিয়ে নেয়ার পায়তারা করছেন।

Please Share This Post in Your Social Media




কারিগরি সহায়তা: AMS IT BD